বেগম করফুলের নেছা ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে শিক্ষা ও মানবতায় অনন্য ভূমিকা রাখছেন শিক্ষানুরাগী আলী আকবর

মোট দেখেছে : 426
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

জামাল উদ্দিন দামাল : প্রজ্ঞা ও দক্ষতার এক বিরল ব্যক্তিত্ব শিক্ষানুরাগী-সমাজসেবী-শিল্পপতি আলী আকবর। কুমিল্লা অঞ্চলে শিক্ষা বিস্তার ও সমাজসেবায় তার অবদান অপরিসীম।

সবার হৃদয় ছুঁয়ে জনপ্রিয়তার অনন্য এক ব্যক্তিত্ব তিনি। অত্যন্ত অমায়িক-মানবিক আচরণে অপ্রতিদ্বন্দ্বী এই মানুষটি তার নিজের মাতা বেগম করফুলে নেছার নামে গড়ে তুলেছেন একটি ফাউন্ডেশন। এই ফাউন্ডেশন জনসেবায় এক অনন্য প্রতিষ্ঠান। কুমিল্লা শহরের আদর্শ সদর উপজেলার কালিরবাজার ইউনিয়নের ধনুয়াখলা গ্রামে জন্মগ্রহণকারি এই মানুষটির জন্ম হয়েছিল প্রকৃতির এক অপার সৌন্দর্যের বুক জুড়ে। কুমিল্লা শহর থেকে পশ্চিম দক্ষিন দিকে কোটবাড়ির পার হয়ে ময়নামতি পাহাড় পাড়ি দিয়ে যেতে হয় তার ছায়া সুনিবিড় শান্তির নীড়ে। এই মানুষটিকে জনহিতকর কাজে শিক্ষা দিয়েছে যেন এই প্রকৃতিই। কারণ শিল্প উদ্যোক্তা এই গুণী মানুষটি প্রকৃতির মতোই উদার-মানবিক। প্রকৃতির কাছ থেকেই শিখে নিয়েছেন তার জীবনের শ্রেষ্ঠ শিক্ষা। জীবনের নানা বাস্তবতায় অতি ব্যস্ত এই মানুষটি তার মনের প্রসারতাকে আরও বাড়িয়ে দেন সমাজসেবার নানা পাঠে। প্রচারবিমুখ এই ব্যক্তিত্ব বিশ্বাস করেন ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র সম্পদ আহরণ করেই একজন মানুষ সঞ্চয়ের নবজাগরণ গড়ে তুলতে পারেন। তার সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় জানা যায় এসব কথা। তিনি চান তার প্রতিষ্ঠিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতি শিক্ষার্থী হোক বাংলাদেশের এক একজন যোগ্য প্রতিনিধি। যারা আগামী দিনে দেশের মঙ্গলে বিশাল ভূমিকা রাখবে। তার গড়া প্রতিষ্ঠানের অনেক শিক্ষার্থী ইতিমধ্যে এই অঞ্চলে অনন্য ভূমিকা রাখছে। করোনা বিপর্যয়ে নিরবে-নিভৃতে অসংখ্য মানুষের কল্যানে ভূমিকা রেখেছেন। তিনি বিশ্বাস করেন, মানুষের কল্যানে কাজ করলে মহান আল্লাহকে পাওয়া যায়। মানবসেবায় জীবনের প্রকৃত শান্তি। ডান হাত দিয়ে দান করলে বাম হাত জানবে না...ইসলামের এই প্রকৃত নিয়মটি শিক্ষানুরাগী ও সমাজসেবী আলী আকবর সব সময় হৃদয়ে ধারন করেন।

আরো দেখুন

সর্বশেষ ফটো